সোমবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২২

ভেজা চোখে বিদায় বেলায় ফেদেরার কাঁদালেন সবাইকে

দেশ স্পোর্টস ডেস্ক

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন

ভেজা চোখে বিদায় বেলায় ফেদেরার কাঁদালেন সবাইকে

কান্নাভেজা চোখে, বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে রজার ফেদেরারকে বলে বোঝাতে হলো, তাঁর খারাপ লাগছে না। বরং আজ তিনি সুখী। এই কান্না আসলে আনন্দাশ্রু! 

লেভার কাপই হবে ফেদেরারের শেষ টুর্নামেন্ট। বহুদিনের প্রতিদ্বন্দ্বী রাফায়েল নাদালকে সঙ্গে নিয়ে নামবেন কোর্টে, তারপর র‌্যাকেটটা তুলে রাখবেন—এ ঘোষণা আগেই দিয়েছিলেন ফেদেরার। টেনিস–বিশ্বও তাই প্রস্তুত ছিল। 

যে নাদালের সঙ্গে কোর্টে আগুনে লড়াই করেছেন এতগুলো বছর, তাঁকে সঙ্গে নিয়ে শেষ লড়াইটা জিতে মধুর সমাপ্তি ঘটাবেন ফেদেরার, এমনটাই ভেবেছিলেন সবাই। দুঃখজনকভাবে তা হয়নি। 

টিম ইউরোপের হয়ে দ্বৈত জুটি হিসেবে নামা ফেদেরার ও নাদাল হেরেছেন টিম ওয়ার্ল্ডের জুটি ফ্রান্সিস তিয়াফো ও জ্যাক সকের কাছে। ৪-৬, ৭-৬ (৭ /২), ১১-৯ গেমের হারে শেষটা রাঙাতে পারেননি ফেদেরার। তাতে টেনিসভক্তদের অতৃপ্তি থাকার কথা নয়। 

অতৃপ্তি বলে যদি কিছু থেকে থাকে, সেটি ২০টি গ্র্যান্ড স্লামজয়ী সুইস কিংবদন্তিকে আর কখনো কোর্টে দেখতে না পাওয়ার অনুভূতি। হারের পর বিদায়ী ভাষণে তা মনে হতেই সম্ভবত চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি ফেদেরার। কেঁদেছেন শিশুর মতো। পাশে বসে থাকা রাফায়েল নাদালের চোখও ভিজে এসেছে। পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা নোভাক জোকোভিচের মুখেও তাকানো যাচ্ছিল না। টেনিসের ‘বিগ ফোর’–এর আরেকজন অ্যান্ডি মারেও উপস্থিত ছিলেন সেখানে। 

ক্যারিয়ারের সেরা এসব প্রতিদ্বন্দ্বীকে পাশে নিয়েই ফেদেরার তাঁর বিদায়ী ভাষণে আবেগ সামাল দিতে পারেননি, ‘আমরা এটা (দুঃখের সময়) কাটিয়ে উঠব। দিনটা দারুণ। সবাইকে বলেছি, আমি সুখী। খারাপ লাগছে না। শেষবারের মতো নিজের জুতার ফিতা বাঁধা উপভোগ করেছি। সবকিছুই ছিল শেষবারের মতো।’ 

২০২১ উইম্বলডন কোয়ার্টার ফাইনালের পর চোটের কারণে আর কোর্টে নামতে না পারা ফেদেরার গত সপ্তাহে অবসরের ঘোষণা দেন। এর পর থেকেই তাঁর এই বিদায়ী ম্যাচের অপেক্ষায় ছিলেন সবাই। নীল জার্সিতে কোর্টে নামা ফেদেরারের বিদায়ী মুহূর্তটাও যেন হয়ে ওঠে বেদনার প্রতীক। নীল তো বেদনারই রং! সেই রঙের জার্সি পরেই টেনিস ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়কে বিদায় জানালেন টিম ইউরোপে তাঁর কিংবদন্তি সতীর্থরা—নাদাল, জোকোভিচ, মারে। 

লন্ডনের ও২ অ্যারেনায় ফেদেরারের চোখে পানি দেখে গ্যালারিতেও অনেকের চোখ ভিজেছে। তবে সংবাদ সম্মেলনে সমর্থকদের জন্য খুশির খবর দিয়েছেন ৪১ বছর বয়সী কিংবদন্তি, ‘এখানেই সবকিছুর শেষ নয়; জীবন জীবনের মতোই এগিয়ে চলবে। আমি সুস্থ আছি, ভালো আছি। একটি বার্তা দিতে চাই, খেলাটির প্রতি আমার ভালোবাসা থাকবে। ভক্তদের জানাতে চাই, আবারও দেখা হবে, বিশ্বের অন্য কোথাও, আলাদা কোনো টেনিস কোর্টে। তবে কবে, কোথায়, কীভাবে হবে, তা নিয়ে এখনো কোনো পরিকল্পনা করিনি। এমন সব জায়গায় গিয়ে খেলতে চাই, যেখানে আগে কখনো খেলিনি। সামনের বছরগুলোয় শুধু ধন্যবাদ জানিয়ে যেতে চাই সবাইকে, যাঁরা এত দিন ধরে আমাকে সমর্থন দিয়েছেন।’ 

অর্থাৎ পেশাদার টেনিস ছাড়লেও ফেদেরারকে হয়তো মাঝেমধ্যে প্রদর্শনী ম্যাচ খেলতে দেখা যাবে। বাংলাদেশ সময় গতকাল শুক্রবার রাতে পেশাদার ক্যারিয়ারে নিজের শেষ ম্যাচটা ফেদেরার খেলে ফেলার পর নাদালও টের পাচ্ছেন, তাঁর জীবন থেকে কী মুছে গেল! 

২০০৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত টেনিসের কোর্টে ৪০ বার মুখোমুখি হয়েছেন দুজন। তাঁদের যেমন প্রতিদ্বন্দ্বিতা, তেমনি একে অপরের প্রতি সম্মানও কম নয়। ২০১৭ সালে প্রাগের পর এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো একসঙ্গে খেললেন দুই কিংবদন্তি। এবারই শেষ, আর এই শেষের ব্যথা বাজছে নাদালের বুকেও। 


সর্বশেষ

উপরে নিয়ে চলুন