বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

দাপুটে জয়ে চট্টগ্রাম প্রিমিয়ার ক্রিকেট শুরু করলো মুক্তিযোদ্ধা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৬:৫৬ অপরাহ্ন

দাপুটে জয়ে চট্টগ্রাম প্রিমিয়ার ক্রিকেট শুরু করলো মুক্তিযোদ্ধা

দাপুটে জয়ে চট্টগ্রাম প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ শুরু করেছে শিরোপা প্রত্যাশী মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র লাল। নিজেদের প্রথম ম্যাচে তারা ৬ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে ফ্রেন্ডস ক্লাবকে। 

লিগে প্রথম দু’ম্যাচে আগে ব্যাট করা দল জয় পাওয়ার পরও মুক্তিযোদ্ধা নিজেদের ব্যাটারদের উপর ভরসা রেখে টসে জিতে পরে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। অধিনায়কের আস্থার দারুণ প্রতিদান দেন মুক্তিযোদ্ধার টপ অর্ডার ব্যাটাররা। ফ্রেন্ডস ক্লাবের ছুঁড়ে দেওয়া ২০৫ রানের লক্ষ্য তারা অর্জন করে নেয় ১৭ বল এবং ৬ উইকেট হাতে রেখেই।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রাম এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লের ১০ ওভারে ৫৪ রানের জুটি গড়েন ফ্রেন্ডস ক্লাবের দুই ওপেনার মাহফিজুল ইসলাম ও সৌরভ। রবিন ১৮ রান করার পর মুক্তিযোদ্ধার জাওয়াদের প্রথম শিকার হলে ভাঙে উদ্বোধনী জুটি। দলীয় ৭০ রানের মাথায় ফ্রেন্ডস হারিয়ে ফেলে অপর ওপেনার সৌরভকে। সৌরভ আউট হওয়ার আগে ৫৫ বলে ৬ চারে খেলেন ৪৪ রানের ইনিংস। ফারদিন খান ১২ রান করে বিদায় নিলে ফ্রেন্ডস ক্লাব ৯১ রানে হারায় তৃতীয় উইকেট। 

দ্রুত ৩ উইকেটের বিদায় হলেও এক প্রান্তে অবিচল ছিলেন চারে ব্যাট করতে নামা উদয় ভূঁইয়া। কিন্তু অন্য প্রান্তে ফ্রেন্ডসের ব্যাটারদের আসা-যাওয়ার মিছিল অব্যাহত ছিল। তবে, উদয়ের ব্যাটিং দৃঢ়তায় নির্ধারিত ৫০ ওভারে ফ্রেন্ডস ক্লাব ২০৪ রানের ফাইটিং স্কোর গড়ে। উদয় অপরাজিত থাকেন ৮৬ রানে। তার ৯২ বলের ইনিংসটি সাজানো ছিল ৭টি চার আর ৫টি ছয়ে। উদয়ের পর একমাত্র আকিব আলী ডাবল ফিগার (১৭ রান) করতে পারেন। মুক্তিযোদ্ধার হয়ে শহীদ ও জাওয়াদ নেন ২টি করে উইকেট।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মুক্তিযোদ্ধাকে ১৬.১ ওভারে ৬৮ রানের জুটি এনে দেন শাফায়েত ইফতি ও আল আমিন। ৩০ রান করা ইফতির বিদায়ের পর রাফসানকে নিয়ে ৬৯ রানের জুটি গড়ে মুক্তিযোদ্ধাকে জয়ের পথে রাখেন আল আমিন। ৫০ বলে ৪২ রান করে রাফসান বিদায় নিলেও আল আমিন ঠিকই তুলে নেন মৌসুমে নিজের প্রথম ফিফটি। ৫ চার আর ১ ছয়ে ৬৪ রান করে আল আমিন বিদায় নেয়ার পর দলীয় অধিনায়ক সাজ্জাদুল হক রিপন এসে বলের সাথে পাল্লা দিয়ে রান তুলে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান। রিপন ৫০ বলে ২ চার আর ৩ ছয়ে ৪২ রান করেন। দলের জয়ের সময় ইমরুল অপরাজিত ছিলেন ১২ রানে।

দলের জয়ের পর দারুণ উল্লসিত মুক্তিযোদ্ধার ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান, পিএইচপির পরিচালক মোহাম্মদ আকতার পারভেজ হিরু। তিনি বলেন, 'গতবার শেষ সময়ে দল গঠন করেও আমরা ভালো রেজাল্ট করেছিলাম। এবারে, আমরা সময় থাকতেই ঘর গুছিয়ে, পরিকল্পনা মতো শুরু করেছি। এবারের আসরে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি হাতে নেয়ার জন্য মুখিয়ে আছে দলের সবাই। আশাকরি, এবার আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়ে তারুণ্যের জয়গান গাইতে পারবো।'

 

 


সর্বশেষ

উপরে নিয়ে চলুন