সোমবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২২

লিটনের-সাকিবের ঝোড়ো ফিফটি, ১৭৩ করেও হারেরবৃত্তে বাংলাদেশ

দেশ স্পোর্টস ডেস্ক

১৩ অক্টোবর ২০২২, ১১:৫১ পূর্বাহ্ন

লিটনের-সাকিবের ঝোড়ো ফিফটি, ১৭৩ করেও হারেরবৃত্তে বাংলাদেশ

লিটন ও সাকিব টি-টোয়েন্টিসুলভ ব্যাটিং করলেও আর কেউ সাপোর্ট দিতে পারেনি

লিটন দাসের ফিফটি, এরপর সাকিব আল হাসানের টানা দ্বিতীয় ফিফটি। এমন দুটো পারফর্ম্যান্স টি-টোয়েন্টিতে সাধারণত কমপক্ষে ১৯০ ছোঁয়া ইনিংসের নিশ্চয়তা দিয়ে দেয়। কিন্তু বাংলাদেশের সেটা হয়নি, ইনিংস শেষ করেছে ১৭৩ রান তুলে। বাকি সব ব্যাটার যে ফিরেছেন নিদারুণ ব্যর্থতা নিয়ে! আর বাংলাদেশের করা সেই রানকে মামুলি বানিয়ে মাত্র ৩ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তানকে জয় এনে দেন বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ানরা। 

টি-টোয়েন্টিতে বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ানের ১৫০ ছাড়ানো জুটি আছে ৫টা। তাদের দল পাকিস্তানের সামনে ১৭৪ রানের লক্ষ্যকে খুব বেশি বড় মনে না হওয়াটাই স্বাভাবিক। আজ বাংলাদেশের নখদন্তহীন বোলিংয়ে লক্ষ্যটাকে মামুলি মনে হয় আরও। পাশাপাশি ছিল সহজ ক্যাচ ড্রপ, ফিল্ডিং মিসে বাউন্ডারি হজম। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের লাগামহীন বোলিং। সবমিলিয়ে হাতে থাকা এক ম্যাচ পাকিস্তানকে দিয়ে দিলো বাংলাদেশ।

ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে আগের ম্যাচেই। শেষ ম্যাচটিতে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি করেছিল টাইগাররা। কিন্তু দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতার পর শেষ ওভারে এসে হেরে গেছে সাকিব আল হাসানের দল। পাকিস্তান জিতেছে ৭ উইকেট আর ১ বল হাতে রেখে।

পাকিস্তানের লক্ষ্য ছিল ১৭৪ রান। বোলিংয়ে ভালো শুরু করে বাংলাদেশ। হাসান মাহমুদ আর তাসকিন আহমেদ প্রথম দুই ওভারে দেন ৩ করে মাত্র ৬ রান।

তৃতীয় ওভারে শরিফুল এক বাউন্ডারি হজম করলেও ৭ রানের বেশি খরচ করেনি। তবে চতুর্থ ওভারে হাত খোলেন বাবর আজম। তাসকিনকে টানা দুই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে চাপ কমান পাকিস্তান অধিনায়ক। পরের ওভারে হাসান মাহমুদকেও জোড়া চার হাঁকান বাবর। ষষ্ঠ ওভারে বল হাতে নিয়ে বাবর-রিজওয়ানের দুই বাউন্ডারিসহ ১১ রান হজম করেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। পাওয়ার প্লেতে বিনা উইকেটে ৪৬ রান তোলে পাকিস্তান।

বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ানকে এরপরও হাত খুলে খেলতে দেননি সাকিব-শরিফুলরা। ১০ ওভারে মাত্র ৭৩ তুলতে পারে পাকিস্তান।

পাকিস্তানের রান তাড়ায় চাপ বাড়ছিল ক্রমশ। শেষ ১০ ওভারে ১০১ রান দরকার পড়ে তাদের। সেই চাপ কমাতেই ঝুঁকি নিয়ে ছক্কা হাঁকাতে যান মোহাম্মদ রিজওয়ান। কিন্তু ফাইন লেগে একদম সহজ ক্যাচ ফেলে দেন সাইফউদ্দিন। পরের ওভারে বল হাতে নিয়ে 'নো'সহ তিনি দেন ১৯ রান। তাতেই পাকিস্তানের চাপ কমে যায় অনেকটা।

তবে পরের ওভারে হাসান মাহমুদ জোড়া উইকেট তুলে নিয়ে ফের বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরান। ৪০ বলে বাউন্ডারিতে ৫৫ করে ডিপ কভারে ক্যাচ হন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর। এর এক বল পর দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে হায়দার আলিকে বোল্ড করেন হাসান।

৩৩ রানে জীবন পাওয়া রিজওয়ান ৪২ বলে পূরণ করেন ফিফটি। তিনিই ম্যাচ অনেকটা হাতে নিয়ে আসেন পাকিস্তানের। শেষ দুই ওভারে ১৪ রান দরকার পড়ে পাকিস্তানের। ১৯তম ওভারে সৌম্য সরকার আউট করেন রিজওয়ানকে (৫৬ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ৬৯)। কিন্তু ততক্ষণে ম্যাচ বলতে গেলে শেষ।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারে ৬ বল খেলে কোনো রান নিতে পারেননি নাজমুল হোসেন শান্ত। ভাগ্যিস নাসিম শাহ প্রথম বলটা ওয়াইড করেছিলেন, নাহয় সে ওভারটা মেইডেন হিসেবেই লেখা থাকতো খাতায়।

শান্তর ডট খেলার প্রবণতা তো ছিলই, দেহভাষ্যেও মিলছিল না ইন্টেন্টের দেখা। যার চাপটা পড়ছিল সৌম্য সরকারের ওপর। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে বেরিয়ে এসে মারতে গিয়ে মিড অনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। 

এরপরও শান্ত ছিলেন খোলসেই, যে কারণে চাপটা ধীরে ধীরে বাড়ছিল বাংলাদেশের ওপর। ওপাশে আসা লিটন দাস খেলছিলেন অবশ্য হাত খুলে। সঙ্গে পাক বোলারদের অনিয়ন্ত্রিত বোলিং বাংলাদেশের কাজটা একটু সহজ করে দিচ্ছিল।

পাওয়ারপ্লের শেষ ওভারে খোলস ছেড়ে বেরোতে গিয়েই বিদায় নেন শান্ত, ফেরার আগে ১৫ বলে করেন ১২ রান। ভাগ্যিস তার এক বল আগে স্কুপ করে একটা চার আদায় করেছিলেন। নাহয় তার স্ট্রাইক রেটটা যে থাকত আরও নিচের দিকে! দুই ওপেনারকে হারিয়ে বাংলাদেশ পাওয়ারপ্লেতে তোলে ৪১ রান।

পাওয়ারপ্লের শেষ ওভারে সাকিব-লিটন জুটির শুরু। প্রথম দিকে সাকিব একটু নড়বড়ে ছিলেন, লিটনের সঙ্গে একটু ভুল বোঝাবুঝিও হয়ে গিয়েছিল খানিকটা। তবে সেবার ভাগ্যগুণে বেঁচে যাওয়া লিটন এরপর স্বরূপ দেখাতে শুরু করেন। চার-ছক্কা তো আছেই, তা না পেলে অন্তত রানের চাকা অচল হয়ে পড়েনি একটু, এক-দুই রানে ইনিংস গড়ছিলেন সাকিবের সঙ্গে। 

৩১ বলে ফিফটি পূরণ করেন লিটন। ৬টি চার আর ২টি ছক্কায় ৬৯ রান করে শেষমেশ থামেন তিনি। ১৩ অক্টোবর তার জন্মদিনটাও রাঙানো হয়ে যায় তাতে। ৫৫ বলে ৮৮ রানের জুটি ভাঙার পর সাকিব অনেকটা একাই লড়েছেন। ৭ ছক্কা আর ৩ চারে ৪২ বলে ৬৯ রান করে সাকিব যখন ফিরছেন, তখন বাংলাদেশের রান ১৬৭। ইনিংসে বল তখনো বাকি ৮টি।

পরের আট বল থেকে কেবল ৬ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ। যার ফলে সম্ভাবনা জাগিয়েও বাংলাদেশের রানটা আটকে যায় ১৭০ এর ঘরেই। ১৭৩ রানের পুঁজি নিয়ে বাংলাদেশ বোলিংয়ে নামবে।


সর্বশেষ

উপরে নিয়ে চলুন