রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে আবারও বড় লজ্জার স্বীকার চট্টগ্রাম

দেশ স্পোর্টস ডেস্ক

১৮ জানুয়ারি ২০২৪, ১১:০৪ পূর্বাহ্ন

বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে আবারও বড় লজ্জার স্বীকার চট্টগ্রাম

বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে অন্যান্য জেলা দলগুলো যেখানে একের পর এক উন্নতি করে দলের খেলোয়াড়গণ জায়গা করে নেন জাতীয় পর্যায়ে সেখানে চট্টগ্রাম জেলা দল হাঁটছে উল্টো পথে। তারই ‘ধারাবাহিকতায়’ এবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) আয়োজনে ইয়াং টাইগার অনূর্ধ্ব-১৬ প্রতিযোগিতায় প্রথম রাউন্ডেই ঘরে ফিরে এলো চট্টগ্রাম জেলা দল। লক্ষ্মীপুরের কাছে প্রথম ম্যাচ হারের পর দ্বিতীয় ম্যাচে কুমিল্লার করা ৭৭ রানও করতে পারেনি চট্টগ্রাম।    

বুধবার (১৭ জানুয়ারি) নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে গ্রুপের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে  কুমিল্লার দেয়া মাত্র ৭৭ রানের লক্ষ্যও তাড়া করতে গিয়ে ৭৩ রানে অলআউট হয়ে যায় চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামের ব্যাটারদের মধ্যে মাত্র দুজন পৌঁছাতে পেরেছে দুঅঙ্কের কোটায়। তাদের মধ্যে একজন করেছে ২০ রান আর আরেকজন করেছে ১০ রান। ফলে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কেন বার বার এভাবে ব্যর্থ হয়ে খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে চট্টগ্রাম দলকে।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার ক্রিকেট সম্পাদক আবদুল হান্নান আকবর চট্টগ্রামের একটি দৈনিককে জানান, আমি আসলে এমন হারের কোন কারন খুজে পাচ্ছি না।’  প্রথমে তিনি বোর্ডের নির্বাচন প্রক্রিয়াকে দুষলেও অন্য জেলা দলগুলোওতো বোর্ডের একই প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত হচ্ছে। তাহলে তারা পারলে চট্টগ্রাম কেন পারবেনা। জবাবে তিনি বলেন, ‘এখনো আরেকটি খেলা বাকি আছে। সেটা শেষ করে দল ফিরলে কোচ এবং ম্যানেজারকে ডেকে কৈফিয়ত চাওয়া হবে। কেন এভাবে বারবার ব্যর্থ হচ্ছে দল।’

তবে অনেকের অভিযোগ দলের কোচ দলের সাথে যাওয়া বিসিবির চট্টগ্রাম জেলার দায়িত্ব প্রাপ্ত কোচ মাহবুবুল করিম মিঠুর স্বেচ্ছাচারিতা আর একগুয়েমির কারণে দল ব্যর্থ হচ্ছে। দল পরিচালনায় তার একক সিদ্ধান্ত, ভুল একাদশ নামানো সব মিলিয়ে দলে নেই কোন শৃঙ্খলা। সিজেকেএস ক্রিকেট সম্পাদক চট্টগ্রামের সেই দৈনিককে জানিয়েছেন ‘এই দলের সাথে কোচ মাহবুবুল করিম মিঠুর সঙ্গে দুজনকে সহকারী হিসেবে পাঠাতে চেয়েছিল সিজেকেএস। কিন্তু সে দুজন যাননি। কারন হিসেবে তারা জানিয়েছেন কোচ হিসেবে যাকে পাঠানো হয়েছে সে মিঠু কারো কথা শুনেনা বা পরামর্শ নিতে চায় না।’

সবকিছু তার নিজের মত করতে চায়। আর তাতে দল হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত। সিজেকেএস ক্রিকেট সম্পাদক জানিয়েছেন দল ফিরলে কোচের কাছে এমন হারের ব্যাখ্যা চাওয়া হবে। প্রয়োজনে বিসিবির কোচ বাদ দিয়ে তাদের নিজেদের কোচ দিয়ে এখন থেকে দল পাঠানোর প্রস্তাব করবেন তিনি।


সর্বশেষ

উপরে নিয়ে চলুন